avertisements
Text

অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ কামরুল আহসান

গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের সর্বাত্মক সংগ্রামই হওয়া উচিত বিএনপির একমাত্র অঙ্গিকার

প্রকাশ: ০৫:৪১ পিএম, ১৩ সেপ্টেম্বর,সোমবার,২০২১ | আপডেট: ০২:১৮ পিএম, ২৫ সেপ্টেম্বর,শনিবার,২০২১

Text

পরাজয় হলে নিশ্চিত মৃত্যু জেনেও ২৭ মার্চ ১৯৭১ সালে মেজর জিয়াউর রহমান চট্টগ্রামের কালুর ঘাট বেতার কেন্দ্রে যান এবং স্বাধীনতার ঐতিহাসিক ঘোষনা দিয়েছিলেন, যা তাকে অসীম সাহসী দেশ প্রেমিক হিসেবে অসামান্য উচ্চতা দান করেছে। স্বাধীনতার ঘোষণার দিনক্ষণ সংক্রান্ত একটি বিষয় স্পষ্ট হওয়া দরকার। জিয়াউর রহমানের সহকর্মীদের ভাষ্য অনুযায়ী ২৫ ও ২৬ মার্চের মধ্যবর্তী রাতে তিনি সর্বপ্রথম তার সৈনিকদের কাছে স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়েছিলেন; পরবর্তীতে ২৬ তারিখে আরেকবার এবং ২৭ মার্চ পুনরায় রেডিওতে স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়েছিলেন। শ্বাসরুদ্ধকর মুক্তিযুদ্ধের অবসান হয় ১৬ ডিসেম্বর ১৯৭১ সালে লাখো মা বোনের ইজ্জত ও শহীদের রক্তের বিনিময়ে । রণাঙ্গনে অবদানের স্বীকৃতি স্বরুপ জিয়াউর রহমানকে ১৯৭২ সালে যুদ্ধ ফেরত মুক্তিযোদ্ধাদের সর্বোচ্চ ”বীর উত্তম” খেতাবে ভূষিত করা হয়। 

সন্দেহাতীত ভাবেই তৎকালীন সরকারের পক্ষ থেকে গৃহীত এটি একটি প্রশংসনীয় উদ্যোগ। পেশাদারিত্ব তাঁর চারিএিক বৈশিষ্ঠের অন্যতম প্রধান একটি দিক। দেশ প্রেমের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ জিয়াউর রহমান নিজ পেশায় ফিরে যান। তারপর প্রায় চার বছর গত হয়।

১৯৭৫ এর ১৫ ই আগষ্টে পট পরিবর্তনের পর রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হন খন্দকার মোস্তাক এবং সামরিক আইন জারি করেন। সংবিধান বলবৎ রাখলেও সংশোধনী এনে নাগরিক অধিকারের পরিধি আশঙ্কাজনক ভাবে সংকুচিত করেন। রাষ্ট্রপতি মোশতাক আহমেদ ২৬ সেপ্টেম্বর ১৯৭৫-এ ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ জারি করার মাধ্যমে ১৫ই আগষ্টে অভ্যুত্থান ও হত্যাকান্ডে জড়িত সেনা কর্মকর্তাদের আইনি সুরক্ষা দেয়ার ব্যবস্থা করেন। 

এ আদেশে বলা হয়েছিলো, ১৫ই আগষ্ট অভ্যুত্থানের সাথে জড়িত কারো বিচার করা যাবেনা (মহিউদ্দিনআহমদ, ২০১৭, পৃ-৬৪), যা প্রমান করে, বাকশাল সরকারের তৎকালীন বানিজ্য মন্ত্রী খন্দকার মোশতাক আহমেদ ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ জারি করে ১৫ই আগষ্টের অভ্যুত্থানকারী ও হত্যাকান্ডের সাথে জড়িতদের আইনি সুরক্ষা দিয়েছেন; জিয়াউর রহমানের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ সবৈব মিথ্যা। 

রাজনীতির এই চরম অস্থিতিশীল পরিস্থিতে জিয়াউর রহমান ক্ষমতার দৃশ্যপটে চলে আসেন। সঙ্কট, সন্দেহ, পারস্পরিক দোষারোপ, কু ও পাল্টাকু এর অগ্নিঝরা নভেম্বরের প্রথম সপ্তাহে সিপাহি-জনতা অবরুদ্ধ জিয়াকে মুক্ত করে কিভাবে দেশ পরিচালনা গুরু দায়িত্ব প্রদান করেছেন সে সম্পর্কে ইতিহাস সচেতন দেশবাসী অবগত আছেন। এই ইতিবাচক ঘটনাটিকে যথাযথ মর্যাদা দানের লক্ষ্যে ৭ নভেম্বরকে ”জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস' হিসেবে পালন করা হয়। জিয়াউর রহমান যখন সেনাপ্রধান হন তখন সামরিক বাহিনী ছিল নানা দল উপদলে বিভাজিত। রাজনৈতিক দলগুলো ছিল পরস্পর বৈরী। সামরিক বাহিনীতে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনা এবং রাষ্টক্ষমতা প্রয়োগের আইনি ভিত্তি তৈরী করার জন্য রাজনৈতিক দল তৈরী করে রাজনীতিকে সেনা ছাউনি থেকে জনগণের হাতে ফিরিয়ে দেয়ার আন্তরিক চেষ্টায় নিমগ্ন ছিলেন। ফলাফল হিসেবে ১৯৭৮ সালে ১লা সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি) গঠিত হয়। 

অনেকের সংশয় ছিল যে, তিনি পরিস্থিতি সামাল দিতে পারবেন না। ঐতিহাসিক গওহর আলী তার সন্দেহের কারণ হিসেবে চার ভাগে বিভক্ত সামরিক বাহিনীকে প্রধান প্রতিবন্ধকতা হিসেবে মন্তব্য করেছেন (১৯৭৬ সালে নিউজিল্যান্ড ইন্টারন্যাশনাল রিভিউতে প্রকাশিত এক প্রবন্ধে)। অনেকের সংশয়ের আরও একটি কারণ হল, সাধারনত ক্ষমতার বৃত্তের বাইরে থেকে, রাজপথে কিংবা আলোচনার টেবিলে এদেশের প্রায় সকল রাজনৈতিক দল গঠিত হয়েছে। সেই বিবেচনায় বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি) ব্যতীক্রমধর্মী। এটি ক্ষমতার কেন্দ্র বিন্দুতে থাকা জিয়াউর রহমানের মস্তিস্কজাত রাজনৈতিক মতাদর্শ। সংগত কারণে অনেকের মধ্যে সংশয় ছিলো এটি কি রাজনৈতিক দল নাকি একটা ‘প্রবনতা’। এছাড়াও রাজনীতির অঙ্গনের অনেকের ধারণা ছিল সরকারের মেয়াদ শেষ হলেই বিএনপি দৃশ্যপট থেকে হারিয়ে যাবে। দল হিসেবে বিএনপি টিকে থাকবে কিনা সে সম্পর্কে মন্তব্য করতে গিয়ে রাজনৈতিক দীর্ঘ পথ পাড়ি দেওয়া বাংলাদেশ কমিউনিস্ট পার্টির পক্ষ থেকে বলা হয়েছিল, ”সরকার চলে গেলে এই দল থাকবে বলে মনে হয় না” ( বাংলাদেশ কমিউনিস্ট পার্টি, ১৯৭৮, পৃ.৫)। 

সব সন্দেহ ও সমালোচনাকে ভুল প্রমাণ করে জিয়াউর রহমান সামাল দিয়েছিলেন, সফল হয়েছিলেন। এই সাফল্যের পিছনে ভুমিকা রেখেছে রাষ্ট্র ক্ষমতাকে গণমুখী এবং গণনির্ভর করাতে তাঁর সদিচ্ছা ও কার্যকর পদক্ষেপ। জাতির জীবনে এ ধরনের সাফল্য বয়ে নিয়ে আসার কারণে অনেক গবেষক জিয়াউর রহমানকে তুরস্কের কামাল আতাতুর্ক, মেক্সিকোর প্লুতার্ক এলিয়স কামেল ও লজারো কার্দেনাস এবং দক্ষিণ কোরিয়ার পার্ক চুংহি এর সাথে তুলনা করেন (Hossain, Golam, General Ziaur Rahman and the BNP: Political Transformation of a Military Regime, UPL,  Dhaka, P.17)। বিদ্যমান রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে কোন্দল ও স্থবিরতার বিপরীতে তিনি  দেশের জন্য সময় উপযোগী রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক পরিকল্পনা বিষয়ক ইশতেহার প্রণয়ন ও ঘোষনা করেন। এভাবে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি) একক বিকল্প হিসেবে দাঁড়িয়ে যায়।

জিয়াউর রহমান দায়িত্ব গ্রহণের মাধ্যমে কেবল শাসক পরিবর্তন হয়েছে তা নয় বরং বাংলাদেশ রাষ্ট্র কেমন হবে; এর দার্শনিক ভিত্তি কি হবে, তার একটি সুনির্দিষ্ট ও প্রায়োগিক রূপরেখা পাওয়া গিয়েছে। জিয়াউর রহমান প্রতিশোধ পরায়ান ছিলেন না। বহুবার বৈষম্য ও অবজ্ঞার শিকার হয়েও তিনি শত্রু চিহ্নিত করে নির্মুল করার পথে না হেটে বাংলাদেশকে একটি কার্যকর রাষ্ট্র হিসেবে গঠন করার নিমিত্তে  সর্বস্থরের জ্ঞাণী-গুনী মানুষের সম্মেলন ঘটিয়েছেন। বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদের দার্শনিক ভিত্তির উপর প্রতিষ্ঠিত রাজনৈতিক দল- বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি) গঠন করেছেন, যা পর্যায় ক্রমে ধর্ম, বর্ণ, গোত্র নির্বিশেষে দেশপ্রেমে উদ্ভুদ্ধ মানুষের মিলন মেলায় পরিনত হয়েছে। সমালোচকদের ভুল প্রমান করে এই দলটি জনগণের সমর্থন আদায় করে প্রভাবশালী দল হিসেবে শুধুমাত্র স্থায়ীত্বই অর্জন করেনি বরং জিয়া পরবর্তী সময়ে তিনবার গ্রহনযোগ্য অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচনে বিজয় লাভ করে সরকার পরিচালনা করেছে। 

এরশাদের আমলে বিএনপিকে ভাঙ্গার চেষ্টা হয়েছিল। আবার ২০০৭ সালের ওয়ান ইলেভেনের পরে বিএনপিতে সংস্কারপন্থী সৃষ্টি করে দলটিকে ধ্বংস করার চেষ্টা হয়েছিল। কিন্তু সব সংকট মোকাবেলা করেই বিএনপি এগিয়েছে। এখন জিজ্ঞাসা হল এই দলের গ্রহনযোগ্যতা তথা টিকে থাকার পেছনের কারণ কি? অনেক  কারণের মধ্যে উল্লেখযোগ্য তিনটি হলোঃ (১) বহুদলীয় গনতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করা, (২) দলের সুদৃঢ় দার্শনিক ভিত্তি রচনা করা, ও (৩)কার্যকর উন্নয়ন মূলক অর্থনৈতিক ও সামাজিক কর্মসূচি গ্রহণ। বাকশাল নামের একদলীয় শাসন ব্যবস্থা কায়েম করেছিল আওয়ামী লীগ, যা ব্যাপক ভাবে সমালোচিত ও নিন্দিত হয়েছে। দায়িত্ব গ্রহণের পর একদলীয় বাকশালী শাসন ব্যবস্থা থেকে বাংলাদেশে বহুদলীয় গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করেছিলন জিয়াউর রহমান। বাংলাদেশের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও তাঁর সময়েই ভারতের নির্বাসন থেকে ফিরে দলের হাল ধরেন। 

বাহাত্তরের সংবিধানে আমাদের পরিচয় “বাঙালি” হিসেবে ধার্য্য  করা হলেও রাষ্ট্র ক্ষমতা অধিষ্ঠিত হওয়ার পর জিয়াউর রহমান এই ধারনায় পরিবর্তন আনা জরুরী বলে মনে করেন। নাগরিক হিসেবে সকলের অধিকার ও স্বাধীনতা নিশ্চিত করতে হলে জাতি হিসেবে আমাদের পরিচয় কি তা স্পষ্ট হতে হবে। তিনি বলেন, “যদি আমরা জাতীয় পরিচয় নির্ধারনের ক্ষেত্রে “বাঙালি” পরিভাষাটি ব্যবহার করি তাহলে বাংলাদেশের ভূখন্ডে বসবাসরত অবাঙালি বাংলাদেশী নাগরিকগণ (যেমন-আদিবাসীগণ) জাতীয় পরিচয়ের বলয় থেকে ছিটকে পড়বে। এটি আমাদের জাতিসত্বার একটি খন্ডিত পরিচয় তুলে ধরে। 

জিয়াউর রহমান তাই বাংলাদেশের বাঙালি ও অবাঙালিসহ সকল নাগরিকের অধিকার ও স্বাধীনতা নিশ্চিত করার জন্যে জাতীয় পরিচয়ের মাধ্যম হিসেবে “বাঙালির” স্থলে “বাংলাদেশী” পরিভাষা ব্যবহার করার প্রস্তাব করেন। আমাদের জাতীয় পরিচয়ের ক্ষেত্রে এ ধরনের একটি তাত্ত্বিক বিচ্যুতি দূর করার লক্ষ্যে কালক্ষেপণ না করে তিনি একে আইনি কাঠামোর মধ্যে স্থিত করেন” (‘বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদ’, জিয়াউর রহমান,(www.bnpbd.org)। বাঙালি জাতীয়তাবাদী ভাবনার তুলনায় জিয়ার রাষ্ট্র দর্শন 'বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদ' অন্তর্ভুক্তিমূলক ও প্রয়োগিক।এভাবেই জিয়াউর রহমান দলেকে 'বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদী' একটি সুদৃঢ়  দার্শনিক ভিত্তির ওপর প্রতিষ্টিত করেছিলেন এবং একটি জাতিরাষ্ট্র তৈরি করতে সক্ষম হয়েছিলেন। 

বিশিষ্ট সাংবাদিক মহিউদ্দিন আহমদ বলেন,“আওয়ামী লীগের বাঙালি জাতীয়তাবাদের রাজনীতির নিষ্পত্তি হয়েছিল বাংলাদেশের স্বাধীনতার মধ্য দিয়েৃ...বায়ান্ন, ছেষট্টি , উনসত্তরের স্মৃতি নিয়ে বসে থেকে তো আর জাতিরাষ্ট্র তৈরি করা যায় না। এ জন্য প্রয়োজন ধারাবাহিক অর্থনৈতিক উন্নয়নের পরিকল্পনা, যুদ্ধ পরবর্তী সময়ের প্রয়োজনে সমঝোতা ও ঐক্যের রাজনীতি এবং জনপ্রশাসনে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনা। বলা চলে, আওয়ামী লীগ সরকার দেশের বৃহত্তর নিম্নবিত্ত-মধ্যবিত্তের আকাঙ্খার সঙ্গে তাল মেলাতে পারেনি। ঐক্যের বদলে গোষ্ঠীতন্ত্র মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছিল। জাতীয় ঐক্য তো দূরের কথা, মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের প্রধান শক্তিটিও বিভক্ত হয়ে পড়েছিল...বাহাত্তরে প্রয়োজন ছিল নতুন রাজনীতি, নতুন কৌশল। একটি জাতীয় রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার মধ্য দিয়ে ‘জয়বাংলা’ স্লোগান তার কার্যকরিতা সম্পন্ন করেছিল। আওয়ামী লীগ এরপর পুরনো মনস্তত্ত্বের ঘেরাটোপ থেকে আর বেরিয়ে আসতে পারেনি, এর ধারাবাহিকতা চলছে আজও (মহিউদ্দিন আহমদ, বিএনপি: সময়-অসময়, ২০১৭, পৃ-১৩৪-১৩৫)।

‘ উন্নয়ন মূলক অর্থনৈতিক ও সামাজিক কর্মসূচি গ্রহণ’ এর বিষয়টি যথাযথ ভাবে ব্যাখ্যার জন্য বিস্তারিত আলোচনার প্রয়োজন যা এইস্বল্প পরিসরে সম্ভব নয়। সংক্ষেপে বললে, জিয়াউর রহমান খাল খনন, তৈরি পোশাক শিল্প রপ্তানিমুখিকরণ এবং এই শিল্প বিকাশের জন্য সর্ব প্রথম স্পেশাল বন্ডেড ওয়ারহাউজ স্কিম চালু করা, গ্রামীন ব্যাংক চালু করা, মূল্য সংযোজন কর (মূসক) বা ভ্যাট পদ্ধতির উদ্ভাবনসহ অর্থনৈতিক উন্নয়নে নানা ধরনের পরিকল্পনা গ্রহণ এবং বাস্তবায়ন করেছেন। বিশেষ করে পোশাক শিল্প ও রেমিটেন্স, যার ওপর আজ দেশের অর্থনীতি দাঁড়িয়ে আছে, তার উদ্ভব ও বিকাশ হয়েছিল জিয়াউর রহমানের আমলেই। তার সময়ে নেওয়া বিভিন্ন পদক্ষেপ প্রকৃত পক্ষেই জনসাধারনের জন্য সুফল বয়ে এনেছিল। ক্ষমতায় গিয়ে চটকদার কিছু কর্মসূচি বা উন্নয়ন কর্মকাণ্ড শুরু করে জনসাধারণকে গণতন্ত্রের দাবি থেকে সরিয়ে রাখাই হল সামরিক শাসকদের সাধারণ বৈশিষ্ট, কিন্ত জিয়াউর রহমান সেই তুলনায় ছিল এর এক অনন্য সাধারণ ব্যতিক্রমধর্মী উদাহরণ। 

জাতীয়তাবাদী দলের জনপ্রিয়তার পেছনে জিয়াউর রহমানের ব্যক্তিগত ভাবমূর্তিরও উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রেখেছে। রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের প্রেস সচিব কাফি খান (যিনি এক সময়ে ”ভয়েজ অব আমেরিকার” সংবাদ পাঠক ছিলেন) জিয়ার সততা সম্পর্কে মন্তব্য করতে গিয়ে বলেন, “আত্মীয় স্বজনদের কেউ কোন তদবিরের জন্য বঙ্গভবনে বা তাঁর বাসায় আসার সাহস পায়নি... তিন-চার হাজার টাকার মতো বেতন পেতেন। সেখান থেকে ১৫০ টাকা রাষ্ট্রপতির রিলিফ ফান্ডে জমা দিতেন। বাকি টাকাটা দিয়ে সংসার চালাতেন” (সৈয়দ আবদাল আহমেদের নেওয়া কাফি খানের সাক্ষাৎকার, www.bnpbd.org)। জিয়াউর রহমানের যুদ্ধ দিনের সঙ্গী ছিলেন মেজর মীর শওকত আলী। তিনি বলেন, জিয়াউর রহমানে ছিলেন স্বাধীনচেতা ও প্রখর ব্যক্তিত্ব সম্পন্ন । তার আশে পাশে মৌমাছির মতো অনেক চাটুকারের সমাবেশ ঘটেছিল। কিন্তু তার ছিল সজাগ দৃষ্টি। জিয়াউর রহমান মীর শওকতকে একদিন বলেছিল, ‘‘মীর, যতদিন আমাদের দেশের দশ হাজার টাউট ও চামচা নিশ্চিহ্ন না হবে, তত দিন আমাদের কষ্ট থাকবে’’ (লেপ্টেনেন্ট জেনারেল (অব) মীর শওকত আলী, যুদ্ধের কথা কষ্টের কথা, আমাদের একাত্তর, আহমদ, এম সম্পাদিত গণউন্নয়ন, গ্রন্থাগার, ঢাকা পৃষ্ঠা,৪৫)।
    
১৯৮১ সালের ৩০ মে চক্রান্তকারীদের হাতে প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান অনাকাঙ্খিত হত্যার শিকার হন। দেশ ও জাতির সংকটময় মুহূর্তে সংসারের করিডোর অতিক্রম করে বাংলাদেশের রাজনীতিতে বেগম জিয়ার আবির্ভাব ঘটে ১৯৮২ সালের ৩ জানুয়ারি দলের প্রাথমিক সদস্য হবার মাধ্যমে। ১৯৮২ সালের শুরুর দিক থেকে দীর্ঘ নয় বছর জগদ্দল পাথরের মত ক্ষমতা কুক্ষিগত করে রেখেছিলেন জেনারেল এরশাদ। বেগম খালেদা জিয়া সামরিক জান্তা এরশাদের জুলুম নির্যাতনের যাঁতাকলে পিষ্ট জাতির আরেক ক্রান্তিলগ্নে জনগনের ত্রাণকর্তা হিসেবে আবির্ভূত হন। দলের ভিতরের ষড়যন্ত্র (অভ্যন্তরীণ ষড়যন্ত্রের নায়ক ছিল এরশাদের সাথে গোপনে আঁতাতকারী ‘হুদা-মতিন’ চক্র) ও দলের বাইরের ষড়যন্ত্রকে নস্যাত করে বেগম জিয়া ৭ দলীয় ঐক্যজোট তৈরি করেন। ১৯৮৩ সালের ৪ ও ৫ সেপ্টেম্বর আওয়ামী লীগ এর নেতৃত্বে গঠিত ১৫ দলীয় জোটের সাথে বৈঠক করেন এবং সামরিক শাসনের বিরুদ্ধে ৫ দফা ঘোষণা দেন। ১৯৮৬ সালে সামরিক জান্তা এরশাদ তার দু:শাসনকে বৈধতা দেবার এক দূরভিসন্ধিমূলক কূট চালের অংশ হিসেবে সংসদ নির্বাচনের ঘোষনা দিলে ৭ দল ও ১৫ দল যৌথভাবে এই ষড়যন্ত্রমূলক নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে। কিন্তু আওয়ামী লীগ ধূর্ত সামরিক জান্তা এরশাদের পাতানো নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করে স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনকে ক্ষতিগ্রস্ত করেছিল। যদিও পরবর্তীতে আওয়ামী লীগ সহ অন্য দলগুলো বিএনপির সঙ্গে এসে আন্দোলনে যোগ দেয়। 

নেতৃত্বের অসাধারণ দক্ষতা ও আপোষহীন মনোভাব প্রদর্শন করে বেগম খালেদা জিয়া স্বৈরাচারী এরশাদের সামরিক শাসন বিরোধী গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের আন্দোলনের নেতৃত্বের মূল চালিকা শক্তি হয়ে উঠেন। হরতাল, সচিবালয় ঘেরাও ও আন্দোলনের নেতৃত্ব দিতে গিয়ে তিনি লাঠি চার্জ ও কাঁদানি গ্যাসে আহত হন। কোন নির্যাতন তাঁকে রুখতে পারেনি। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে নেতা কর্মীদের সাহস ও অনুপ্রেরণার মধ্যমণি হয়ে সকল বাধা অতিক্রম করে স্বৈরাচারী সামরিক জান্তা এরশাদ-এর কবল থেকে ১৯৯০ এর ৬ ডিসেম্বরে দেশবাসীকে মুক্ত করেছেন। এই আপোষহীন নেতৃত্বের মাধ্যমে তিনি বিএনপি-কে শক্তিশালী ও মজবুত ভিত্তির উপর দাঁড় করাবার পাশাপাশি তরুণ প্রজন্মের প্রত্যয়দীপ্ত ছাত্রদের বিশাল এক অংশ নিয়ে গঠিত জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলকে আত্মবিশ্বাসে পরিপূর্ণ এবং ছাত্রদের অধিকার আদায়ে লড়াকু এক ছাত্র সংগঠনে রূপান্তরিত করেন। ১৯৯০ সালের ৬ ডিসেম্বরের গণ অভ্যুত্থানে স্বৈরাচারী এরশাদের পতনে এই আত্মবিশ্বাসী লড়াকু ছাত্রদের ভূমিকা মুক্তিযুদ্ধে ছাত্রসমাজের ভূমিকাকে স্মরণ করিয়ে দেয়। ১৯৯১ এর তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে খালেদা জিয়ার আপোষহীন নেতৃত্বের প্রতিদান স্বরূপ বিএনপি বিজয় অর্জন করে। পরবর্তীতে অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে তিন মেয়াদে তিনি প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

২০০৭ সালের ১১ জানুয়ারি কিছু সেনা কর্মকর্তাসহ সেনাপ্রধান মঈন উদ্দিন ক্ষমতা দখল করেন এবং ২২ জানুয়ারি তারিখে অনুষ্ঠিতব্য নির্বাচন বাতিল করেন। ফখরুদ্দিনের নেতৃত্বে অসাংবিধানিকভাবে সেনাসমর্থিত এক সরকার প্রতিষ্ঠা করে দেশে জরুরী অবস্থা জারী করা হয়। ক্ষমতা কুক্ষিগত করে  দখলদারবাহিনী বেগম খালেদা জিয়া ও তাঁর পরিবার এবং বিএনপির শীর্ষস্থানীয় নেতৃবৃন্দের বিরুদ্ধে কল্পকাহিনী প্রচার শুরু করে। চাপের মুখে সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকার জরুরী অবস্থা বহাল রেখে নির্বাচন দেয়ার প্রস্তাব করলে বেগম খালেদা জিয়া তা প্রত্যাখ্যান করেন। কিন্তু আওয়ামী লীগ সেই স্বৈরাচারী এরশাদের ১৯৮৬ সালের নির্বাচনে ৭ দল ও ১৫ দলীয় জোটের সিদ্ধান্তকে পাশ কাটিয়ে যে প্রক্রিয়ায় শেষ মুহূর্তে অংশগ্রহণ করেছিল ঠিক সেই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটালো। অজ্ঞাত কারণে আওয়ামী লীগ জরুরী অবস্থার মধ্যেই নির্বাচন করার প্রস্তাব মেনে নেয়। গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া পুনর্বহাল করার স্বার্থে বেগম খালেদা জিয়া মঈন উদ্দিন - ফখরুদ্দিনের সেনা সমর্থিত সরকারের (যারা জিয়া পরিবার কে ধ্বংস করার জন্য বিরতিহীন ভাবে সকল প্রকার জুলুম ও নির্যাতন চালিয়ে যাচ্ছিল) অধীনে জরুরী অবস্থার মধ্যে নির্বাচনে অংশগ্রহন করতে রাজী হননি। 

পরবর্তীতে জরুরী অবস্থা প্রত্যাহার করা হলে বিএনপি জাতীয় নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে এবং নানামুখী ষড়যন্ত্রের মুখে পরাজয় বরণ করে। নির্বাচনে জয়লাভ করে আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করে। এর পর যা ঘটে যাচ্ছে তা সবার জানা। ২০১৪ ও ২০১৮ সালে ভোটার বিহীন নির্বাচন করে আওয়ামী লীগ ২য় ও ৩য় মেয়াদে সরকার গঠন করেছে। এ দীর্ঘ সময়ে বেগম জিয়াকে বাড়ী ছাড়া করেই তারা ক্ষ্যান্ত হয়নি, গত ৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ সালে  বর্তমান সরকার তাঁকে মিথ্যা মামলায় সাজা দিয়ে কারাগারে নিক্ষেপ করেছে। মিথ্যা মামলায় তিনি এখন বন্দি। প্যারোলে মুক্তি দেওয়া হলেও জামিন দেওয়া হচ্ছেনা। বেগম খালেদা জিয়া কারামুক্ত হলে বিদেশে গিয়ে যথাযথ চিকিৎসা গ্রহণ করে সুস্থ হয়ে উঠবেন; তাঁর আপোষহীন নেতৃত্বে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের এই প্রাণের দাবী আদায় হবে সেই আতংকে সরকার তাঁর ওপর এই মিথ্যে মামলা-হামলা ও জুলুম-নির্যাতন চালিয়ে যাচ্ছে।  

বর্তমানে গুম-খুন, নারী-শিশু নির্যাতন, অপহরণ, গুপ্তহত্যা ইত্যাদি অনাচার ও আতঙ্ক মানুষের নিত্যসঙ্গী। গণতন্ত্রের চর্চা নেই, আইনের শাসন নেই, জীবনের নিরাপত্তা নেই। জিজ্ঞাসা হল, এ অবস্থায় বিএনপি'র করণীয় কি? মূলত রাজনৈতিক সংকট রাজনীতিক ভাবেই মোকাবেলা করতে হয়। আমরা লক্ষ্য করেছি, গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে বিএনপির আপোষহীন সংগ্রাম ও নেতৃতের ধারাবাহিক একটি ঐতিহ্য রয়েছে। জিয়াউর রহমান একদলীয় বাকশালী শাসন ব্যবস্থা থেকে বাংলাদেশকে মুক্ত করেছে বহুদলীয় গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে। বেগম খালেদা জিয়া স্বৈরশাসক এরশাদের হাত থেকে দেশকে রক্ষা করার জন্য গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে নিরলস সংগ্রাম করে 'আপোষহীন নেত্রী' হিসেবে উপাধি লাভ করেছন। আজ সময় আসছে বিএনপির নিজ দলের রচিত সংগ্রামের অতীত ইতিহাসের দিকে ফিরে তাকানো এবং গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের বিরতিহীন সংগ্রামের পুনারাবৃত্তি করা। 

এই সংগ্রামে জিয়াউর রহমানের বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদের রাজনৈতিক মতাদর্শের চেতনাকে অন্তরে ধারণ করে বেগম খালেদা জিয়া প্রদর্শিত আপোষহীন নেতৃত্বের চেতনায় উজ্জীবিত হয়ে স্বৈরাচার এরশাদ বিরোধী আন্দোলনের অনুসরণে বহুদলীয় ঐক্য তৈরি করে দেশকে দু:শাসন মুক্ত করার রাজনৈতিক কর্মসূচি গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করা। বর্তমানে করোনা মহামারির এই দু:সময়ে জাতির প্রয়োজনে গণতন্ত্রের চর্চা পুনরুদ্ধারের মাধ্যমে জনজীবনে স্বস্তি ফিরিয়ে আনার জন্য আদর্শিক জোটের পাশাপাশি বহুদলীয় ঐক্য তথা রাজনৈতিক মোর্চা গঠন করা জরুরী। 

গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে ঐক্যবদ্ধ সংগ্রামের কোন বিকল্প নেই। ঐক্য তথা রাজনৈতিক মোর্চা গঠন করার ক্ষেত্রে দেশে বিরাজমান বর্তমান ভয়াবহ দুরবস্থায় রাজনৈতিক মতাদর্শগত অভিন্নতা বিবেচনায় নেওয়া খুব জরুরি বিষয় নয়। বাংলাদেশের গণতন্ত্র- পুনরুদ্ধারের ইতিহাস তারই স্বাক্ষর বহন করে। সামরিক জান্তা এরশাদ বিরোধী আন্দোলন ৭ দল ও ১৫ দল যৌথভাবে করেছিল। বিএনপির নেতৃত্বধীন ১৮ দলীয় জোটের শরিক ছিল জামায়াতে ইসলামী, এটি যেমন একটি বাস্তবতা, তেমনি আওয়ামী লীগ তৎকালীন জামায়তে ইসলামীর দুই শীর্ষ নেতা মতিউর রহমান নিজামী ও আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদের সাথে মতবিনিময় করে স্বৈরাচারী এরশাদের ষড়যন্ত্রমূলক জাতীয় সংসদ নির্বাচনে (১৯৮৬ সালে) অংশগ্রহণের বিষয়টিও ইতিহাসের আরেকটি অংশ। তাই বহুদলীয় ঐক্য তথা মোর্চা গঠন করে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার সংগ্রামের বিরোধিতা করার যোক্তিক কিংবা নৈতিক কোন অধিকার আওয়ামী লীগ কিংবা বর্তমান সরকারের নেই, কিংবা রাখেনা। 

ইতিহাস থেকে শিক্ষা গ্রহণ করতে হবে। দেশীয় ও আন্তর্জাতিক সমালোচনা কিংবা ষড়যন্ত্রের  শিকার হয়ে এ ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ না করা কিংবা এক্ষেত্রে বিলম্ব করা হবে ইতিহাস থেকে শিক্ষা গ্রহণ না করার শামিল। গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে ভবিষ্যতের বহুদলীয় রাজনৈতিক মোর্চার প্রথম শর্ত হওয়া উচিত বেগম খালেদা জিয়ার উন্নত চিকিৎসার জন্য জামিন চাওয়া ও স্থায়ী ভাবে কারা মুক্তি। এই দাবী বাস্তবায়নের কোন বিকল্প নেই। কারণ এই সংগ্রামে বিজয়ের জন্য প্রয়োজন আপোষহীন নেতৃত্ব। বাংলাদেশের ইতিহাস প্রমাণ করে, এ ধরনের নেতৃত্বের জন্য বেগম খালেদা জিয়া তুলনাহীন। 

অতীতের ন্যায় তার আপোষহীন নেতৃত্বেই নির্দলীয় সরকারের দাবী আদায় করে একটি অবাধ ও সুষ্ঠনির্বাচন অনুষ্ঠান করা সম্ভব। একথা সত্য যে, বিগত একযুগ যাবৎ নিষ্ঠুরতম রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার হয়ে আসছেন  বিএনপির চেয়ারপারসন ও ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপারসনসহ  কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ থেকে শুরু করে স্থানীয় পর্যায়ের কর্মী -সমর্থক পর্যন্ত। কিন্তু দেশের স্বার্থে হাল ধরতে হবে। হাল ছাড়া যাবেনা, সে জন্য সাংগঠনিক ভাবে বিএনপিকে অধিকতর সক্রিয় এবং সফল হতে হবে। প্রয়োজন নেতৃত্বের পুনর্বিন্যাস ও সাংগঠনিক কার্যক্রম সক্রিয়ভাবে পরিচালনা করা। প্রত্যাশিত ইতিবাচক ফলাফল পেতে হলে, বর্তমান নেতৃত্বকে এক্ষেত্রে ধারণ ও অনুসরণ করতে হবে জিয়াউর রহমানের সেই ”বৈষম্যহীন” অথচ ”বিচক্ষন” সাংগঠনিক দৃষ্টিভঙ্গি। কর্মকান্ড ও যোগ্যতার ভিত্তিতে পদায়ন ও দলের জন্য নিবেদিত এমন একধিক সূত্র থেকে তথ্য সংগ্রহ করে নেতৃত্ব সৃষ্টি করা ছিল জিয়াউর রহমানের কর্মপন্থা।

এই নীতি অনুসরণ করলেই চাটুকার কিংবা সুযোগ সন্ধানীরা দল কিংবা দেশের ক্ষতি করতে পারবেনা; মূল্যায়িত হবে পরীক্ষিত নেতা-কর্মী-সমর্থক, এবং তাদের সংগ্রাম ও আত্মত্যাগের মাধ্যমেই গণতন্ত্র মুক্তি পাবে। বর্তমান সরকার জনগণের জান মালের নিরাপত্তা প্রদানে ধারাবাহিকভাবে ব্যর্থতার পরিচয় দিয়ে যাচ্ছে। এর অন্যতম  প্রধান কারণ হচ্ছে, দেশ গণতান্ত্রিক ভাবে পরিচালিত হচ্ছেনা। জনগণের নিরাপত্তা বিধানের জন্যই গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে হবে, নির্দলীয় সরকারের দাবী আদায় করে একটি অবাধ ও সুষ্ঠ নির্বাচন অনুষ্ঠানে বর্তমান সরকারকে বাধ্য করতে হবে। তাই জনপ্রিয়, দায়িত্বশীল ও নেতৃত্ব প্রদানে ঐতিহ্যবাহী একটি রাজনৈতিক দল হিসেবে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের সর্বাত্মক সংগ্রাম রচনাই হওয়া উচিত বিএনপির ৪৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর একমাত্র অঙ্গিকার।

লেখকঃ অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ কামরুল আহসান, দর্শন বিভাগ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়।
 

লেখকের আরও লেখা

avertisements
ওসির কক্ষে আসামিকে জিজ্ঞাসাবাদের দৃশ্য ‘লাইভ’
ওসির কক্ষে আসামিকে জিজ্ঞাসাবাদের দৃশ্য ‘লাইভ’
স্ত্রীর পরকীয়ায় যুবলীগ নেতা আত্মহত্যা
স্ত্রীর পরকীয়ায় যুবলীগ নেতা আত্মহত্যা
কারাগার থেকে বেরিয়ে প্রথমবার জনসমক্ষে পরীমনি
কারাগার থেকে বেরিয়ে প্রথমবার জনসমক্ষে পরীমনি
সোনাইমুড়ীতে সাংবাদিককে লাঞ্চিত ও মোবাইল ছিনিয়ে নেওয়ার প্রতিবাদে মানববন্ধন
সোনাইমুড়ীতে সাংবাদিককে লাঞ্চিত ও মোবাইল ছিনিয়ে নেওয়ার প্রতিবাদে মানববন্ধন
নভেম্বরে এসএসসি, ডিসেম্বরে এইচএসসি পরীক্ষা- শিক্ষামন্ত্রী
নভেম্বরে এসএসসি, ডিসেম্বরে এইচএসসি পরীক্ষা- শিক্ষামন্ত্রী
নভেম্বরে এসএসসি, ডিসেম্বরে এইচএসসি পরীক্ষা- শিক্ষামন্ত্রী
নভেম্বরে এসএসসি, ডিসেম্বরে এইচএসসি পরীক্ষা- শিক্ষামন্ত্রী
নবাবগঞ্জে ২ কিলোমিটার কাঁচা রাস্তার বেহাল দশা, দুর্ভোগ চরমে
নবাবগঞ্জে ২ কিলোমিটার কাঁচা রাস্তার বেহাল দশা, দুর্ভোগ চরমে
কাদের মির্জার বিরুদ্ধে আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান উচ্ছেদের অভিযোগ
কাদের মির্জার বিরুদ্ধে আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান উচ্ছেদের অভিযোগ
কাফরুল থানা বিএনপি নেতা মোস্তফা কামালের মাতার মৃত্যুতে মির্জা ফখরুল এর শোকবার্তা
কাফরুল থানা বিএনপি নেতা মোস্তফা কামালের মাতার মৃত্যুতে মির্জা ফখরুল এর শোকবার্তা
পাবনা জেলা বিএনপি নেতা সঞ্জু খানের মৃত্যুতে মির্জা ফখরুল এর শোকবার্তা
পাবনা জেলা বিএনপি নেতা সঞ্জু খানের মৃত্যুতে মির্জা ফখরুল এর শোকবার্তা
জাফরুল্লাহ খান চৌধুরীর সুস্থতা কামনায় দোয়া মাহফলি অনুষ্ঠিত
জাফরুল্লাহ খান চৌধুরীর সুস্থতা কামনায় দোয়া মাহফলি অনুষ্ঠিত
খালিশপুর থানা সেচ্ছাসেবক দলের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত
খালিশপুর থানা সেচ্ছাসেবক দলের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত
রাষ্ট্রের কোন সরকারই সমালোচনা পছন্দ করে না : জেবেল
রাষ্ট্রের কোন সরকারই সমালোচনা পছন্দ করে না : জেবেল
রংপুরে মাদকসেবীর ছুরিকাঘাতে এএসআই নিহত
রংপুরে মাদকসেবীর ছুরিকাঘাতে এএসআই নিহত
আঙুলের অপারেশনকালে জুডো খেলোয়াড়ের মৃত্যু
আঙুলের অপারেশনকালে জুডো খেলোয়াড়ের মৃত্যু
কর্ণেল আজিমের রোগমুক্তি কামনায় বিশেষ দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত
কর্ণেল আজিমের রোগমুক্তি কামনায় বিশেষ দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত
অরাজনৈতিক হয়েও রাজনৈতিক হয়রানির শিকার ডা. জুবাইদা রহমান
অরাজনৈতিক হয়েও রাজনৈতিক হয়রানির শিকার ডা. জুবাইদা রহমান
গণমাধ্যম যখন সঠিকভাবে কাজ না করে তখন বহুমাত্রিক ও গণতান্ত্রিক সমাজ ক্ষতিগ্রস্ত হয় -তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী
গণমাধ্যম যখন সঠিকভাবে কাজ না করে তখন বহুমাত্রিক ও গণতান্ত্রিক সমাজ ক্ষতিগ্রস্ত হয় -তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী
এ প্রতিহিংসার শেষ কোথায়!
এ প্রতিহিংসার শেষ কোথায়!
জার্মান বিএনপির সভাপতি আকুল মিয়ার মাতার মৃত্যুতে শোক প্রকাশ
জার্মান বিএনপির সভাপতি আকুল মিয়ার মাতার মৃত্যুতে শোক প্রকাশ
বিনিয়োগকারীদের ২৪ হাজার কোটি টাকা লাপাত্তা
বিনিয়োগকারীদের ২৪ হাজার কোটি টাকা লাপাত্তা
গুন্ডা-মাস্তান থেকে চেয়ারম্যান হয়েছি-শামিম (ভিডিওসহ)
গুন্ডা-মাস্তান থেকে চেয়ারম্যান হয়েছি-শামিম (ভিডিওসহ)
গুন্ডা-মাস্তান থেকে চেয়ারম্যান হয়েছি-শামিম (ভিডিওসহ)
গুন্ডা-মাস্তান থেকে চেয়ারম্যান হয়েছি-শামিম (ভিডিওসহ)
মোদি-বিরোধী প্রতিবাদে মৃত্যুর তদন্ত চেয়েছে ১১টি আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠন
মোদি-বিরোধী প্রতিবাদে মৃত্যুর তদন্ত চেয়েছে ১১টি আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠন
শিক্ষার টেকসই উন্নয়ন, প্রসার ও কর্মমুখীকরণে শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়া ও বিএনপির ভূমিকা
শিক্ষার টেকসই উন্নয়ন, প্রসার ও কর্মমুখীকরণে শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়া ও বিএনপির ভূমিকা
ধামরাইয়ে বাসা বাড়িতে দেহ ব্যাবসার অভিযোগ
ধামরাইয়ে বাসা বাড়িতে দেহ ব্যাবসার অভিযোগ
রাজনীতিকে আওয়ামীকরণ
রাজনীতিকে আওয়ামীকরণ
তারেক রহমান যাঁর প্রতীক্ষায় বাংলাদেশ
তারেক রহমান যাঁর প্রতীক্ষায় বাংলাদেশ
ধামরাই থানায় এক মাস ঘুরেও মামলা করতে পারেনি দলিল লেখক
ধামরাই থানায় এক মাস ঘুরেও মামলা করতে পারেনি দলিল লেখক
ধামরাইয়ে যুবলীগ নেতা সহ ৬ ব্যাক্তির নামে আদালতে চাঁদাবাজী মামলা দায়ের
ধামরাইয়ে যুবলীগ নেতা সহ ৬ ব্যাক্তির নামে আদালতে চাঁদাবাজী মামলা দায়ের
avertisements
avertisements